1. abutalha6256@gmail.com : abdul kadir : abdul kadir
  2. abutalha625616@gmail.com : abu talha : abu talha
  3. asadkanaighat@gmail.com : Asad Ahmed : Asad Ahmed
  4. izharehaq24@gmail.com : mzakir :
বুধবার, ২৮ জুলাই ২০২১, ১১:৩০ পূর্বাহ্ন

কঠিন সমীকরণ কানাইঘাট পৌর নির্বাচনে: কে হবেন নগরপিতা?

নিজস্ব প্রতিনিধি
  • প্রকাশটাইম: বুধবার, ১০ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

১৪-ই ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে কানাইঘাট পৌরসভা নির্বাচন। বহুল প্রত্যাশিত পৌর নির্বাচনে অংশ নিয়েছেন ৬ জন প্রার্থী। প্রত্যেক প্রার্থী বিজয়ের আশা নিয়ে কর্মী সমর্থকদের সাথে নিয়ে নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। ভোটাররাও অধীর আগ্রহে অপেক্ষার প্রহর গুনছে ১৪ তারিখের। তারা নীরব বিপ্লবের মাধ্যমে নির্বাচিত করবেন তাদের পছন্দের মানুষটিকে। কিন্তু সবার কাছে প্রশ্ন কে হবে শেষ অবধি বিজয়ী নেতা৷ কার মুখে দেখা যাবে বিজয়ের হাসি। কঠিন সমীকরণ। কঠিন হিসাব।




ইজহারে হক একটি অনুসন্ধানী রিপোর্ট তৈরি করার জন্য দীর্ঘ সময় ভোটারদের ধারে ধারে গিয়েছে। অনুসন্ধানী রিপোর্ট থেকে জানা যায় এবার কানাইঘাট পৌরসভা নির্বাচনে চতুর্মূখী লড়াই হবে। চারজন প্রার্থীর নিজস্ব ভোট ব্যাংক রয়েছে। আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী জননেতা লুৎফর রহমান ভালো অবস্থানে রয়েছেন। সচেতন ভোটারদের মতামত নিয়ে জানা গেছে জনাব লুৎফর রহমান সবার উপরে অবস্থান করছেন। তিনি একদিকে সরকার দলীয় প্রার্থী। এ হিসাবে তার দলীয় একটি বিশাল ভোট ব্যাংক রয়েছে পৌরসভায়। এছাড়া তিনি স্থানীয় আলেম-উলামাদের সাথে সম্পর্কের সুবাদে আলেমদের বিশাল ভোট ব্যাংককে কাছে টানতে পেরেছেন বলে মনে করা হচ্ছে।




অনুসন্ধানী রিপোর্ট তৈরি করতে গিয়ে জানা যায় কানাইঘাট পৌরসভায় আলিম সমাজের ভোট বড় একটি ফেক্টর। তারা মাঠে নেমে পড়লে যেকোনো কিছু ঘটতে পারেন। মেয়র লুৎফুর রাহমান একজন মুরব্বি ও বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ হওয়ার কারণে কানাইঘাট পৌরসভার সচেতন ভোটাররা মনে করেন- ভোটাররা বৃদ্ধ বয়সে লুৎফর রহমানকে শেষবারের মতো সম্মান জানাবে। সাবেক আ’লীগ নেতা নিজাম উদ্দীন মিজান নারিকেল গাছ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে জুর প্রচারণা চালাচ্ছেন। কর্মী সংকটে নিজাম উদ্দীন আল মিজান অনেক কঠিন পরিস্থিতিতে রয়েছে। বিগত নির্বাচনে তার সাথে থাকা জানবাজ কর্মীদের প্রতি বিগত পাঁচ বছরের অবমুল্যায়নের ফলাফল ভোগ করছেন তিনি৷ পারিবারিকভাবে তার আত্মীয় স্বজনরা জুর প্রচারণা চালাচ্ছেন। তার অনেক কাজে অনিয়ম এবং ধর্মপ্রাণ মানুষ অসন্তুষ্ট রয়েছে। তবে অনেক ভোটাররা মনে করেন তিনি দ্বিতীয় অবস্থানে থাকার সম্ভাবনা রয়েছে।




তার ঘনিষ্টজনদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা মন্তব্য করেন- বিজয় নিয়ে তারা শতভাগ নিশ্চিত। বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শরিফুল হক ধানের শীষে প্রতীক নিয়ে লড়ছেন। নদীর পূর্বপাশে তার বিশাল ভোট ব্যাংক রয়েছে। তবে তথ্য নিয়ে জানা যায় তিনি সব ভোট এখনো একত্রিত করতে পারেন নি। শেষ পর্যন্ত শরিফুল হক মূল লড়াইয়ে থাকবেন বলে তার সমর্থকরা মনে করেন। স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়ছেন অপরপ্রার্থী সাবেক বিএনপি নেতা সুহেল আমিন। তিনি পরগনা ইজমের স্লোগান দিয়ে প্রথমদিকে অনেকটা এগিয়ে গিয়েছিলেন। তবে রিপোর্ট তৈরি করা পর্যন্ত তার পরগনা ইজমে পচন ধরেছে বলে জানা গেছে। শেষপর্যন্ত সম্মানজনক ভোট তার বক্সে ডুকবে বলে মনে করেন তার কর্মী সমর্থকরা। এছাড়া আরো দুজন প্রার্থী কাওছার আহমদ ও চরমোনাই মনোনীত হাতপাখা নিয়ে মাওলানা নজির আহমদ সাহেব নির্বাচনী মাঠে রয়েছে।



নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
copyright 2020:
Theme Customized BY MD MARUF ZAKIR