1. abutalha6256@gmail.com : abdul kadir : abdul kadir
  2. abutalha625616@gmail.com : abu talha : abu talha
  3. asadkanaighat@gmail.com : Asad Ahmed : Asad Ahmed
  4. izharehaq24@gmail.com : mzakir :
মঙ্গলবার, ২০ এপ্রিল ২০২১, ১২:৫২ অপরাহ্ন

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নির্যাতন রুখতে হবে

আবু তালহা রায়হান
  • প্রকাশটাইম: রবিবার, ১৪ মার্চ, ২০২১

সু-শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড। আর শিক্ষকরা হলেন সেই মেরুদণ্ড গড়ার কারিগর। একজন ছাত্রের ব্যক্তিগঠন থেকে শুরু করে সামগ্রিক পরিসরে তার জীবন চলার ক্ষেত্রে আদর্শ শিক্ষকের ভূমিকা অপরিসীম। ছাত্রের চরিত্র কেমন হবে,বড় হয়ে সে কী করবে সেটা অধিকাংশই তার শিক্ষকের ওপর নির্ভরশীল। শিক্ষক যত ভালো আর দায়িত্ববান হবেন, সেই মানসকিতা নিয়েই বেড়ে ওঠবে ছাত্রসমাজ। বলা বাহুল্য, একজন আদর্শ শিক্ষক একটি আদর্শ সমাজ গঠনের শক্তি বহন করেন। শিক্ষক ছাত্রের সম্পর্ক যত ভালো হবে,যত বেশি মধুর হবে শিক্ষার মান ততই বৃদ্ধি পাবে। শিক্ষার্থীরা তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশে আরো উদ্বুদ্ধ হবে। কাজেই শিক্ষক-শিক্ষার্থীর সম্পর্ক হোক বন্ধুসুলভ। শিক্ষকের মন আকাশের মতো উদার হওয়া চাই। যেখানে শত ভুল করেও শিক্ষার্থীরা নির্বিঘ্নে জ্ঞান আহরণ করতে পারে। ছাত্র যতই ভুল করুক,শিক্ষকের নৈতিক দায়িত্ব হলো তাকে ক্ষমা করে দেওয়া। আর ছাত্রের জন্য আবশ্যকীয় হলো শিক্ষকের সঙ্গে সর্বদা সদাচরণ করা। সম্প্রতি আমাদের দেশের ইশকুল-মাদরাসাগুলোতে নৈতিকতার চরম অবক্ষয় পরিলক্ষিত। শিক্ষকগণ ছাত্র-ছাত্রীদেরকে শারীরিক ও মানসকিভাবে পীড়িত করছেন। তাদের সঙ্গে অমানবিক আচরণে মেতে উঠছেন। ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া একটি বিডিও দেখলাম ; হিফজখানার একজন শিক্ষক ছোট্ট একটি শিশু ছাত্রকে বেধড়ক পেটাচ্ছেন! ছাত্রটি চিৎকার দিয়ে হাউমাউ করে কাঁদছে,কিন্তু কেউ এগিয়ে আসছে না ! বিডিওটি দেখামাত্রই মানসিকভাবে অসুস্থ হয়ে পড়ি। আহ! কতটা অমানুষ হলে ছাত্রদের এভাবে পেটানো যায়, বিডিওটি দেখে তা অনুমেয় হলো। বা-মা শত কষ্টের মধ্যে হলেও তাদের ঘাম ঝরানো পরিশ্রমের টাকা দিয়ে বাচ্চাদেরকে ইশকুলে,মাদরাসায় ভর্তি করান। ‘সন্তানরা একদিন সু-শিক্ষিত হবে,মানুষের মতো মানুষ হবে,তাদের সব স্বপ্নকে বাস্তবের আলো দেখাবে’এমন সব স্বপ্ন বুকে লালন করেই ছোট ছোট বাচ্চাদেরকে তারা নির্দ্বিধায় শিক্ষকের হাতে তোলে দেন। আর শিক্ষকগণ যখন সামান্য ভুলের কারণে কিংবা কখনো আবার অন্যায়ভাবেও প্রত্যাশিত আগামী প্রজন্মদের উপর বনের হিংস্র পশুর মতো ঝাঁপিয়ে পড়েন,তখন বিবেকের কাছে হার মানে মনুষ্যত্ব আর মানবতা। লজ্জিত হয় পুরো শিক্ষকসমাজ। মাথা নিচু হয়ে যায় শিক্ষিত জাতির। ভেঙে পড়ে জাতির মেরুদণ্ড। আত্মহত্যা করে ত্রিশ লক্ষ শহীদের রক্তের বিনিময় অর্জিত স্বাধীন বাঙলা। তাই আসুন, সুন্দর ও সমৃদ্ধির দেশ গঠনে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর পাশবিক নির্যাতনের বিরোদ্ধে রুখে দাঁড়াই। নির্যাতনমুক্ত প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলি।

লেখক: কবি, সাংবাদিক
abutalharayhan62@gmail.com

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
copyright 2020:
Theme Customized BY MD MARUF ZAKIR