1. abutalha6256@gmail.com : abdul kadir : abdul kadir
  2. abutalha625616@gmail.com : abu talha : abu talha
  3. asadkanaighat@gmail.com : Asad Ahmed : Asad Ahmed
  4. izharehaq24@gmail.com : mzakir :
বৃহস্পতিবার, ২৪ জুন ২০২১, ০৯:২০ অপরাহ্ন

নিম্নআয়ের বস্তিবাসি ও গ্রাম্য জনগোষ্ঠির মৌলিক সমস্যা এবং আমাদের করণীয়

সৈয়দ মবনু
  • প্রকাশটাইম: শুক্রবার, ৪ জুন, ২০২১

শহর-নগরে যারা বস্তিবাসি তাদের বেশিভাগই এসেছেন গ্রাম থেকে। অার্থনৈতিক যুদ্ধের প্রয়োজনে। ফলে তাদের উভয়ই মূলত একই সম্প্রদায়ের এবং তাদের সমস্যাও এক রকম। আমরা এখানে প্রথমে আলোচনা করবো গ্রামের নিম্ন আয়ের মানুষদের নিয়ে। পরে শহর-নগরের বিষয় আসবে।

গ্রাম্য জনগোষ্ঠির মৌলিক সমস্যাসমূহ :

গ্রাম্য জনগোষ্ঠির অার্থনৈতিক সফলতা-ব্যর্থতা নির্ভর করে বেশিভাগ ফসল উৎপাদন হওয়া-না হওয়ার উপর। তারা প্রাকৃতিক নিয়মে বংশপরিক্রমায় কৃষি কাজ করলেও তাদেরকে এখনও বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে কৃষি কাজে পূর্ণাঙ্গ সচেতন করা যাচ্ছে না শিক্ষা ও পরিবেশের অভাবে। তাদের ছেলে-মেয়েরা যখন কেউ কেউ লেখাপড়া করে স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় কিংবা মাদরাসা শেষ করে তারা আর কৃষিতে ফিরে যেতে চায় না। এজন্য অবশ্য কৃষককে সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় অবমূল্যায়ন প্রধান দায়ী। এক্ষেত্রে অবশ্য তাদের নিজেদেরও হীনমন্যতা রয়েছে। আর এই হীনমন্যতা তৈরি করে দেয় আমাদের বিদেশ নির্ভর শিক্ষা পদ্ধতিতে শিক্ষিত হওয়া সমাজ ও রাষ্ট্রের কর্ণধাররা। সামজের উচুঁ শ্রেণীতে যদি কৃষককে গর্বের সাথে মূল্যায়ন বা সম্মান দেওয়া হতো, যেমন বৃটেন-আমেরিকায় ফার্মারদেরকে দেওয়া হয়, তবে এই হীনমন্যতা সৃষ্টি হতো না। সবার উচিত সেদিকে দৃষ্টিপাত করা। কারণ, কৃষি আমাদের অমূল্য সম্পদ।

বাংলাদেশের কৃষিখাতকে লাভজনক করার জন্য সরকারের করণীয় হলো :

১. স্থানীয়ভাবে প্রত্যেক কৃষককে কৃষি বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেওয়া এবং এই প্রশিক্ষণকে গ্রামের হাইস্কুল পর্যায় বয়সি প্রত্যেকের জন্য বাধ্যতামূলক করে দেওয়া। তবে প্রশিক্ষণের নামে যেন আমাদের কৃষকদের মৌলিক কৃষ্টি-সংস্কৃতিকে ধ্বংস করা না হয়, সরকারকে সেদিকে দৃষ্টি রাখতে হবে।

২. বাংলাদেশের কৃষি ভিত্তিক লেখাপড়াকে গুরুত্ব দিয়ে অার্থনৈতিক পরিকল্পনা তৈরি করতে হবে। কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃষকের ছেলেদেরকে বেশি করে সুযোগ দিতে হবে। কৃষকদের সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় মর্যাদা বৃদ্ধি করে নতুন প্রজন্মকে কৃষির প্রতি উৎসাহিত করতে হবে। বিশেষ করে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয় এবং মাদরাসাগুলোতেই ছাত্রদেরকে কৃষি কর্মের প্রতি অনুপ্রাণিত করতে হবে।
৩. ঘূর্ণিঝড়, বন্যা, খরা, কীট, শীলাবৃষ্টি ইত্যাদি অনেক সময় কৃষকের অর্থনীতিকে ক্ষতিগ্রস্থ করে বসে। এই ক্ষতি থেকে কৃষকদেরকে দ্রুত উঠিয়ে আনতে সরকার ও সমাজকে যৌথ উদ্যোগ নিতে হবে। নতুবা কৃষকরা হতাশ হয়ে কৃষি কর্ম ছেড়ে অন্যদিকে উদ্বুদ্ধ হয়ে যাবেন। অবশ্য অসচেতনতাও কৃষকদেরকে ক্ষতির মুখোমুখি হতাশ করে। হতাশ মানুষেরা জীবন সংগ্রামে হেরে যান এবং শহর-নগরমুখি হতে শুরু করেন। কৃষকের নতুন প্রজন্মকে বর্তমানে দেখা যায় পাথর উত্তোলনে, গার্মেন্সে, রিক্সা-সিএনজি চালনায় মনোযোগি। সরকার কিংবা সমাজের কর্ণধাররা গার্মেন্স শিল্প রক্ষায় যেমন পদক্ষেপ নেন, তেমনি পদক্ষেপ নিতে হবে কৃষি রক্ষায় ও।

চলবে…

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
copyright 2020:
Theme Customized BY MD MARUF ZAKIR