1. abutalha6256@gmail.com : abdul kadir : abdul kadir
  2. abutalha625616@gmail.com : abu talha : abu talha
  3. asadkanaighat@gmail.com : Asad Ahmed : Asad Ahmed
  4. izharehaq24@gmail.com : mzakir :
রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ০৩:৩৯ পূর্বাহ্ন

সিলেটের খেলাফত বিল্ডিং : স্বাধীনতা আন্দোলনের অস্তমিত সূর্যের বিকিরণ

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
  • প্রকাশটাইম: বুধবার, ৭ জুলাই, ২০২১

সিলেট নগরীর নয়াসড়ক মোড়ে দৃষ্টি নন্দন মাদানি চত্বর থেকে একটু সামনে গেলেই মানিক পীরের টিলার কাছে ঐতিহাসিক খেলাফত বিল্ডিং অবস্থিত। এই বিল্ডিংয়ের বুক চিরে এখনো ভেসে উঠে বৃটিশবিরোধী আন্দোলনের বীরসিপাহসালার শায়খুল ইসলাল আল্লামা হুসাইন আহমদ মাদানি রাহি.-এর পদচিহ্ন, কোমল হাতের ছোঁয়া। দীর্ঘদিন এখানে থেকে ইলমে নববির খেদমত করে গেছেন এ মনীষা। হযরত মাদানি রাহি.- এর এক মেয়ের কবরও আছে এই মানিক পীরের টিলায়।



ইতিহাস চর্চা আর দেশপ্রেমে আমাদের দন্যতা না হলে এই “খেলাফত বিল্ডিং” হওয়ার কথা ছিল স্বাধীনতা আন্দোলনের কিংবদন্তি সিপাহসালার শায়খুল ইসলাম সায়্যিদ হুসাইন আহমদ মাদানির স্মৃতিগার।

খেলাফত বিল্ডিং উপমহাদেশীয় মুসলিমদের গর্ব আর অহংকারের প্রতীক। দেশপ্রেম আর
স্বাধীনতা সংগ্রামের অনন্য দলিল।এখানেই ছিল শায়খুল ইসলাম মাদানির বিশেষ আস্তানা। ফলে এই ভবনটি ছিল বৃটিশ বিরোধী খেলাফত ও অসহযোগ
আন্দোলনের সূতিকাগার । পূর্ব বাংলা ও সুরমা উপত্যকার আন্দোলন সংগ্রামের শালাপরামর্শ আর গুরুত্বপূূর্ণ বৈঠক হত এখান থেকেই ।
এখানে এসেছেন এবং বহুব রাত্রি যাপন করেছেন মহাত্না গান্ধি , জহুর লাল নেহরু , মাওলানা আবুল কালাম আযাদ , নেতাজী সুভাশ চন্দ্র বসু , বগ্নিনেতা বিপিন পাল , মাওলানা শিব্বির আহমদ নউসমানী, লাল প্রজাপত রায় , চৌধুরী রহমত উল্লাহ , মাওলানা মোহাম্মদ আলী জাওহার , মাওলানা শওকত আলী , বাল গঙ্গাধর তিলক থেকে শুরু করে খেলাফত ও অসহযোগ আন্দোলনের সকল নেতারা।

শায়খুল ইসলাম মাদনিকে কেন্দ্র করে এখানে ছিল সর্বভারতীয় রাজনৈতিক নেতাদের একটি বিপ্লবী কেন্দ্রস্থল । স্বাধীনতা সংগ্রামের এক প্রাণকেন্দ্র। তাই এটা “খেলাফত বিল্ডিং” নামেই ইতিহাসের সাক্ষি হয়ে আছে। এই খেলাফত বিল্ডিং আমাদের ঐতিহ্যের এক অতন্দ্র প্রহরী। আমাদের মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা আন্দোলনের অস্তমিত একসূর্যের বিকিরণ।

বৃটিশদের কবল থেকে দেশ স্বাধীনের পর সিলেটের এই বিখ্যাত ভবনটিতে শায়খুল ইসলাম হুসাইন আহমদ মাদানি বোখারীর দরস শুরু করেন। এর পর তিনি দেওবন্দে চলে গেলে ক্রমশ দখলদারদের আগ্রাসনে ঐতিহ্যবাহি এ ভবনটি নানান প্রতিকূলতার মধ্যে পড়ে । বিগত বিএনপি জামাত জোটের আমলে জামাতের চোখ পড়ে এই ঐতাহ্যবাহী খেলাফত বিল্ডিং এর প্রতি। কৌশলে তারা এটাকে নিজেদের দখলে নিয়ে যায়।

সিলেটের আলেমদের চোখে ধুলা দিয়ে দিয়ে হযরত মাদানি প্রতিষ্ঠিত খেলাফত বিল্ডিংএর সকল অংশ দখল হয়ে যাওয়ার পর শায়খে কৌড়িয়া রহ.-এর পরামর্শে আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ দা.বা.-এর প্রচেষ্টায় ভবনটির কিছু অংশ উদ্ধার করে মাদরাসা কায়েম করা হয়। সেখানের একটি অংশ এখন বোখারীর দরসগাহ । মাদনী রাহি.- এর সেই মকবুল স্থানে হাদীসের দরস চলছে অবিরাম । এটাই এখন দেশের একমাত্র শুধু হাদীসের মাদ্রাসা (কেবল দাওরাহ জামাত)।

এই বিল্ডিং থেকেই একদা দেশ ও স্বাধীনতার মন্ত্রে উত্তাল হয়ে উঠেছিল গ্রাম-গঞ্জ। মানুষের মুখে মুখে তখন ধ্বনিত হত ‘জাগো জাগো মুসলমান,
হাতে লওরে বিজয় নিশান,দ্বীনের কাজে হওরে আগুয়ান।’

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
copyright 2020:
Theme Customized BY MD MARUF ZAKIR