1. abutalharayhan@gmail.com : Abu Talha Rayhan : Abu Talha Rayhan
  2. asadkanaighat@gmail.com : Asad kg : Asad kg
  3. junayedshamsi30@gmail.com : Mohammad Junayed Shamsi : Mohammad Junayed Shamsi
  4. sufianhamidi40@gmail.com : Sufian Hamidi : Sufian Hamidi
  5. izharehaque0@gmail.com : ইজহারে হক ডেস্ক: :
  6. rashidahmed25385@gmail.com : Rashid Ahmad : Rashid Ahmad
  7. sharifuddin000000@gmail.com : Sharif Uddin : Sharif Uddin
  8. Yeahyeasohid286026@gmail.com : Yeahyea Sohid : Yeahyea Sohid
  9. zahidnahid68@gmail.com : Hafiz Zahid : Hafiz Zahid
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩৪ অপরাহ্ন

সংখ্যালঘুরা আমাদের আমানত

মাওলনা আমিনুল ইসলাম কাসেমি
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০

একটা মুসলিম দেশে সংখ্যালঘুরা আমাদের আমাদের আমানত। তাদের নিরাপত্তা, তাদের দেখভাল করা আমাদেরই দায়িত্ব। তাদের জান- মালের হেফাজত করা সংখ্যাগরিষ্ঠদের উপর বর্তায়। কোথাও যদি সংখ্যালঘু সম্প্রদায় নির্যাতিত হয় তার জন্য মহান আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে হবে।




দেশের বিভিন্ন জায়গাতে মাঝে মাঝে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে যায়। এক শ্রেণীর স্বার্থান্বেষী মহল ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়। বিভিন্ন ধরনের গুজব ছড়ায়ে পরিবেশ বিদঘুটে করে ফেলে। কেউ কেউ উস্কানীমূলক বক্তব্য দিয়ে শান্ত পরিবেশকে অস্হির করে রাখে যেটা অত্যান্ত দুঃখজনক।

সাম্প্রতিক সময়ে দেশের বিভিন্ন স্থানে সংখ্যালঘুদের উপর যে নির্যাতন হয়েছে, এটা আমরা কামনা করি না। বরং নিন্দা জানাই। যারা এসব অপকর্মের সাথে জড়িত, তাদের শাস্তির আওতায় আনা জরুরী। কেননা, এটা অমার্জনীয় অপরাধ।


একটি দেশে সকল ধর্মের লোকের বসবাস রয়েছে।মুসলিম হিন্দু, বৌদ্ধ,খৃষ্টান, সকল ধর্মের লোকের এখানে সহাবস্থান। সকলেই মিলেমিশে এখানে বসবাস করে। কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে তারা চলাফেরা করে। কারো সাথে কখনো বিরোধ হয় না। কিন্তু মাঝে মধ্যে কিছু জায়গায় যে সব উল্টা- পাল্টা ঘটনা ঘটে, এটা মেনে নেওয়া যায় না।


কিছু অশিক্ষিত- অবুঝ লোকের বেপরোয়া কারসাজি চলে আমাদের দেশে। যারা ইসলামকে বোঝে না, রাষ্ট্র বোঝে না, সমাজ বোঝে না, এরকম কিছু লোক সব সময় দেশের জন্য সমস্যা। রাষ্ট্রের জন্য সমস্যা। তারাই দেশ ও জাতির বড় ক্ষতি করে থাকে। কোথাও অতিউৎসাহী লোকের বাড়াবাড়ি থাকে।যেটা সকল সম্প্রদায়ের মাঝে বিদ্যমান। ওরা এমন কিছু কাজ করে, যার দ্বারা পুরো জাতির বদনাম বয়ে আনে। দু-চার জন অবুঝ লোকের কারণে পুরো গোষ্ঠীর বদনাম হয়। যেটা বড় পরিতাপের বিষয়।


আবার এসব লোকগুলো উস্কানী পায়, কিছু মেধাহীন এবং সমঝহীন মানুষের মাধ্যমে। তারা এমন বক্তৃতা করেন, যেন ঐসব কাজ কর্মের দিকে ধাবিত হয়ে যায়। এজন্য সকলেরই সতর্ক হওয়া দরকার। অতি উৎসাহী লোকের পাশাপাশি যারা মাঠে – ময়দানে বক্তৃতা করেন, তাদেরও হিসেব করে বক্তৃতা করা চাই। যাতে অন্য দিকে না গড়ায়।


বাংলাদেশ একটি সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। এখানে বিভিন্ন ধর্মের লোকের সাথে এমন সম্প্রীতি – ভালবাসা, আর অন্য কোনদেশে পাওয়া যাবেনা। এখানে মসজিদ আর মন্দির পাশাপাশি। মসজিদে আজান হচ্ছে,মন্দিরে পুজো হচ্ছে, কারো সাথে কোন বিরোধ নেই। কোন টানাপোড়েন হয় না।


মসজিদের ইমাম সাহেবের বাসা পুজোর মণ্ডপের সাথে। কি আজীব ব্যাপার!যুগ যুগ ধরে চলে আসছে।কোনদিন কারো সাথে বিরোধ হয়নি। ইমাম সাহেব তার ধর্ম- কর্ম করে যাচ্ছেন, ঠিক পুজোর মণ্ডপে অন্যরা ঠিকই পুজো অর্চনায় লিপ্ত।



এরকম শান্তির দেশ, এরকম নির্বিঘ্নে ধর্ম পালনের জায়গা পৃথিবির বুকে আর আছে কি না আমার জানা নেই। এত সহজে, এত সুবিধামত ধর্ম- কর্ম করার জায়গা বাংলাদেশ ছাড়া আর কোথাও পাওয়া যাবে মবে হয় না।


খোদ ইসলামের পূণ্যভূমি সৌদি আরবে এমন সুবিধা নেই, এমন সহজ তরিকায় ধর্ম পালনের ব্যবস্থা নেই। সেখানে মুসলমানেরা অনেক বাইন্ডিংএ থাকতে হয়।

যাহোক, আমাদের বাংলাদেশের বর্তমান সরকার যথেষ্ট আন্তরিক এবং দ্বীন ইসলামের জন্য নিবেদিত। মানুষকে নিজ নিজ ধর্ম পালনে বিশেষ সুযোগ সুবিধা করে দিয়েছেন। এই যে আমরা দেশব্যাপি ওয়াজ মাহফিল করি, মসজিদে মসজিদে স্বাধীনভাবে ওয়াজ নসীহত করি, এটা কি কোথাও পাওয়া যাবে? কোথাও এত সুবিধা মিলবে না।



এজন্য নিজের ধর্ম পালনের পাশাপাশি অন্য ধর্মের লোকদের ধর্ম পালনে সহযোগিতা করা আমাদের দায়িত্ব।তাদের নিরাপত্তা দেওয়া আমাদের কর্তব্য। সংখ্যালঘু ভাইদের সাহায্য- সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়া আমাদের নৈতিক দায়িত্ব মনে করি।


কয়েকদিন আগে আমাদের দেশে যে কয়েকটি ঘটনা ঘটেছে, সে বিষয়ে গেলপরশু ঢাকা শাহবাগ জাতীয় যাদু্ঘরের সামনে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ হয়েছে। আয়োজন করেছে মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ। তাদের ধন্যবাদ জানাই।

সেখানে শরীক হয়েছেন প্রখ্যাত আলেমেদ্বীন, দারুল উলুম দেওবন্দের সূর্য সন্তান আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ সাহেব। তিনি বক্তৃতা করেছেন। সংখ্যালঘু নির্যাতনের তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। তিনি আরো বলেছেন, গুজব ছড়ানো মহাপাপ। মিথ্যা বলার থেকেও বড় পাপ গুজব ছড়ানো।


ধন্যবাদ আল্লামা ফরীদ উদ্দীন মাসউদ সাহেব। একটা সময়পোযোগী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। বাংলাদেশের আর কোনো আলেম এমন পদক্ষেপ নেন নি। কিন্তু আপনার এমন সিদ্ধান্ত প্রশংসার।
তবে আমাদের ওলামায়ে কেরামদের থেকে কারো কারো ওনার সাথে শরীক হওয়া প্রয়োজন ছিল। তাহলে বিষয়টা পরিপূর্ণ হত।




আমরা অবশ্য এসব বিষয়ে অনেকখানি গাফেল। প্রায় সময় এমন ঘটনা ঘটে যায়। কিন্তু তার প্রতিকার করি না। সে ব্যাপারে কোন ব্যবস্থা আমাদের নেওয়া হয় না।

আল্লামা মাসউদ সাহেব এরকম কিছু প্রশংসনীয় কাজ করেন, যার দ্বারা সকলেই তাঁর প্রতি ভক্তি- ভালবাসায় কাছে টেনে নেয়।




পরিশেষে সকলের কাছে অনুরোধ, আসুন,সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের উপর যেন আর নির্যাতন না হয়, আমরা সতর্ক থাকি।সতর্ক করি।
আল্লাহ আমাদের উপর রহম করুন। আমিন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Izharehaq.com
Theme Customized BY Md Maruf Zakir