1. abutalharayhan@gmail.com : Abu Talha Rayhan : Abu Talha Rayhan
  2. asadkanaighat@gmail.com : Asad kg : Asad kg
  3. junayedshamsi30@gmail.com : Mohammad Junayed Shamsi : Mohammad Junayed Shamsi
  4. sufianhamidi40@gmail.com : Sufian Hamidi : Sufian Hamidi
  5. izharehaque0@gmail.com : ইজহারে হক ডেস্ক: :
  6. rashidahmed25385@gmail.com : Rashid Ahmad : Rashid Ahmad
  7. sharifuddin000000@gmail.com : Sharif Uddin : Sharif Uddin
  8. Yeahyeasohid286026@gmail.com : Yeahyea Sohid : Yeahyea Sohid
  9. zahidnahid68@gmail.com : Hafiz Zahid : Hafiz Zahid
সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৮:৩৬ অপরাহ্ন

আসুন বই পড়ুয়া প্রজন্ম গড়ি পর্ব-১

এস এম মুকুল
  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৭ নভেম্বর, ২০২০

আপনি কি জানেন, মায়ের মুখে গল্প শোনার সময় শিশুরা মনে মনে কল্পনার জাল বোনে। বই মানুষের কল্পনাশক্তিকে উজ্জীবিত করার পাশাপাশি মনের ভিতর নিজের একটি জগৎ তৈরি করে। বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে, বইয়ের সংস্পর্শে এবং বই পড়ে শোনানোর মধ্য দিয়ে বড় করে তোলা শিশুদের সহজে ভাষা শেখা ও স্কুলে সাফল্যের সংযোগ রয়েছে। বই মানুষের মধ্যে দয়া, বিনয় ও সৃজনশীলতার বিকাশে সাহায্য করে। এসব কারণে বই পড়া খুব জরুরি। সন্তানদের হাতে বই তুলে দেওয়া আরো বেশি জরুরি। কিন্তু আমরা বাবা-মায়েরা সন্তানদেরকে সহজে বই কিনে দিতে চাই না। মনে করি, এই টাকাটাই বুঝি গচ্চা গেল। অথচ এই বাবা ময়েরাই পরিশীলিত ও মানবীয় সুসন্তান প্রত্যাশা করি। কিন্তু আমরা আগে ভাবি না যে- সন্তানের মানবীয় বিকাশে বইয়ের গুরুত্ব ও অবদান সবচেয়ে বেশি।




আমরা এই বাবা মায়েরাই নির্দ্বিধায় চায়নিজ রেস্টুরেন্টে বা অভিজাত হোটেলে বসে এক-দুই হাজার টাকা খরচ করতে কাপর্ণ্য করি না। অথচ বইমেলায় এসে বই কেনার জন্য দুই হাজার টাকার বাজেট থাকে না। এভাবে মানুষ দিন দিন বই পড়া থেকে দূরে সরিয়ে দিচ্ছে শিশুদেরকে। অথচ বই হচ্ছে শিশুদের বিনোদনের অন্যতম বড় উৎস। আমাদের বইমেলা ঘুরে এমনও দেখা গেছে, শিশু কিশোররা তাদের ইচ্ছেমতো বা পছন্দমতো বই কিনতে পারছে না। এর পেছনে কারণ দুটি- ১) বাবা-মার অনীহা, ২) বাজেট কম। এমনও দেখা যায়, শিশু-কিশোরদের ইচ্ছা ও আগ্রহকে তুচ্ছ করে, তাদেরকে ভুলিয়ে-ভালিয়ে মেলা থেকে ফিরিয়ে নেয়া হয়। তারাই আবার বাইরে গিয়ে ফুচকা, আইসক্রিম, বার্গার বা পিৎজা খাইয়ে বই না কিনতে পারার দুঃখটি ভুলিয়ে দেয়া হয়। এটিকে সৃজনশীলতা বিকাশের বিপক্ষে প্রতারণা বললে কি ভুল হবে?



অনেক বিশেষজ্ঞ, ঘুমাতে যাওয়ার আগে মাথাকে শান্ত ও দুঃশ্চিন্তা মুক্ত করার জন্য বই পড়ার উপদেশ দিয়ে থাকেন। কারণ বই পড়ে মানুষ মুক্ত চিন্তাশক্তির বিকাশ ঘটাতে পারে। গভীর মগ্ন হয়ে পড়ার অভ্যাসে ব্রেনের ফিজিক্যাল পরিবর্তন ঘটে। যারা খুব মগ্ন হয়ে বই পড়েন, তারা বাস্তব জীবনে অনেক বেশি সংবেদনশীল হন। অজানাকে জানা ও অচেনাকে চেনার যে চিরন্তন আগ্রহ, তা বই পড়ে মেটানো যায়। একটি উত্তম বই মানুষকে মহৎ হতে শেখায়, মনকে প্রসারিত করে, বুদ্ধির বিকাশ ঘটিয়ে জীবনকে করে তোলে পরিমার্জিত। আবার বই মানুষের সময় কাটানোর অন্যতম উপায়। এখন সেই স্থান দখল করেছে ফেসবুক, মোবাইল, ইন্টারনেট। এসব করে দৃশ্যমান সামাজিক দক্ষতা বাড়লেও স্থায়ী মননশীলতার কোনো উন্নতি হয় না। পক্ষান্তরে বই পড়ে জ্ঞানের ভুবনে মানুষ আপন মনে বিচরণ করে। মানুষকে পরিশীলিত-বিশুদ্ধ জ্ঞান ও আনন্দ দেয় বই। বইয়ের সাথে পার্থিব কোনো ধন-সম্পদের তুলনা হয় না। মানুষের ধন-রতœ, অঢেল সম্পদ এক সময় নিঃশেষ হয়ে যায়, কিন্তু একটি ভালো বইয়ের শিক্ষা কখনো নিঃশেষিত হয় না।



আমাদের শরীরের যেমন ব্যায়াম লাগে, তেমনি মন কিংবা ব্রেনেরও ব্যায়াম লাগে। আর মন ও ব্রেনের সঠিক ব্যায়াম হলো বই পড়া। মগজকে কাজে লাগানো আর মনের পেশিগুলোকে শক্তিশালী করার শ্রেষ্ঠ উপায় বই পড়া। ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা-গবেষক ও অধ্যাপক এনি ই. কামিংস তার ‘হোয়াট রিডিং ডাস ফর দ্য মাইন্ড’ নামক গবেষণাপত্রে প্রমাণ করেছেন, বই পড়া স্বাভাবিকভাবেই মানুষকে আধুনিক মানসকামী করে তার বয়স কমিয়ে দেয়। বই পড়ার অনেক উপকার। বই পড়লে শব্দ ভাÐার বাড়বে, স্মরণ শক্তি বাড়বে, ভাবনা আর কল্পনার জগৎ বড় হবে, সৃষ্টিশীলতার বিকাশ ঘটবে। আমেরিকান একাডেমি অব পেডিয়াট্রিকসের গৃহীত নীতিনির্ধারণী অবস্থানে বলা হয়েছে, জন্মের পর থেকেই পড়াশোনার বিষয়টি প্রাথমিক শিশু পরিচর্যার অংশ হওয়া উচিত। এর অর্থ, খুব ছোট বাচ্চাদেরও বই পড়ে শোনানোর গুরুত্ব সম্পর্কে মা-বাবাদের সচেতন করা শিশু চিকিৎসাবিদদের কর্তব্যের মধ্যে পড়ে।





আমাদের দেশে এই চর্চা একেবারেই নেই। আমাদের চিকিৎসকরা, শিক্ষকরা এমনকি অন্য পেশাজীবীরাও পড়াশোনার চেয়ে অর্থ উপার্জনের পেছনেই অধিক সময় ব্যয় করেন। পেডিয়াট্রিকস জার্নালে প্রকাশিত এক গবেষণাপত্র থেকে জানা গেছে, যেসব শিশুর বাসায় বেশি বই আছে এবং শিশুকে বেশি বই পড়ে শোনানো হয়, তাদের মস্তিষ্কের বাঁ অংশ উল্লেখযোগ্য হারে সক্রিয় বা উদ্দীপিত হয়। একটু বড় শিশুরা জোরে শব্দ করে পড়লে মস্তিষ্কের এই অংশটি উদ্দীপিত হয়।

 

লেখক:- বিশ্লেষক ও উন্নয়ন গবেষক।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর..
© All rights reserved © 2020 Izharehaq.com
Theme Customized BY Md Maruf Zakir